• শনিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২০

জাকজমকপূর্ণ আয়োজনের মধ্য দিয়ে ডব্লিউবিসিসির ১০ বছরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

Posted on by

জাকজমকপূর্ণ আয়োজনের মধ্য দিয়ে ডব্লিউবিসিসির ১০ বছরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন হয়েছে রবিবার। ওয়েল্সের সাথে বাংলাদেশের সেতু বন্ধন বৃদ্বিতে ভূমিকা রাখছে চেম্বার, এমনটি জানান ওয়েলসের ফার্স্ট মিনিস্টার মার্ক ড্রাকফোর্ড এ.এম।

ওয়েল্স বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স উদযাপন করল ১০ বছরের প্রতিষ্টাবার্ষিকী। রবিবার ইউরোপের অন্যতম বৃহৎ ভ্যেনু কেলটিক মেনারে অনুস্টিত হলো জাকজমকপূর্ণ এ আয়োজন। ওয়েল্স সরকারের ফার্স্ট মিনিস্টার, যুক্তরাজ্যস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনার, এমপি, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ। অনুস্টানে দীর্ঘ ১০ বছরের চেম্বারের বিভিন্ন অর্জন ও চ্যালেঙ্জ নিয়ে বক্তব্য রাখেন চেম্বারের চেয়ার ডিলাবর এ হুসাইন।

অন্যান্য বছরের মতো এ বছরও ওয়েল্স বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স বা ডব্লিউবিসিসি আয়োজন করে বাৎসরিক গালা ডিনারের। তবে এবারের অনুস্টানটি ছিল অন্যান্য বছরের চেয়ে বেশী তাৎপর্য্যপূর্ণ। কেননা এ অনুস্টানেই এক দশকের সফল বাস্তবায়নের প্রশংসা কুড়িয়েছে ডব্লিউবিসিসি।
বিবিসি ওয়েলসের প্রেজেন্টার লুসি ওয়েন ও রদ্রি ওয়েনের যৈাথ পরিচালনায়
অনুস্টানের প্রধান অতিথি ছিলেন ওয়েল্স সরকারের ফার্স্ট মিনিস্টার মার্ক ড্রাকফোর্ড এ.এম। তিনি তার বক্তব্যে ওয়েল্সের বাংলাদেশীদের সম্পর্কে বলেন ওয়েলসের অর্থনীতির অন্যতম যোগানদাতা বাংলাদেশী কমিউনিটি। উদ্যমী, কঠোর পরিশ্রমী বাংলাদেশীদের সাথে কাজ করতে ওয়েল্সের সরকার সব সময় উদগ্রীব।
মার্ক আরো বলেন ব্রেক্্িরটের কষাগাত মোকাবেলায় বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্য চুক্তি ওয়েলসের জন্য হবে ইতিবাচক। আর এ ক্ষেত্রে চেম্বার গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি আশাবাদী
ওয়েলস এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুস্টান শুরু হয়। অনুস্টানের ফাকে ফাকে চলে বক্তব্য, গান ও আলোচনা।
সংগঠনের চেয়ার ডিলাবর এ হুসাইন তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন ২০০৮ সালে চেম্বার প্রতিস্টিত হয়েছিল ওয়েলসে এবং বাংলাদেশের মধ্যে একটি সেতুবন্ধন সৃস্টি করার লক্ষ্য নিয়ে। এ সময়ের মধ্যে একাধিকবার বাংলাদেশে ওয়েলস সরকারের প্রতিনিধি নিয়ে যাওয়া এবং বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধি ওয়েল্স গুরে যাওয়া ছিল একটি বিরাট অর্জন।
ব্রেক্্িরটের দরুন অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কা কমাতে সাউথ এশিয়া ও আরব দেশগুলোর সাথেও কাজ শুরু করার গুরুত্বারোপ করেন চেম্বার চেয়ার ডিলাবর এ হুসাইন-

চেম্বারের সেক্রেটারী জেনারেল মাহবুব নূর তার বক্তব্যে বলেন আমরা বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে কাজ করছি। চেম্বারের মাধ্যমে নারী উদ্যোক্তা সৃস্টিতেও চেম্বার অন্যান্য যে কোন চেম্বারের চেয়ে অনেক এগিয়ে। অনুস্টানে ওমেন অনলি ট্রেড মিশনের আনুস্টানিক ঘোষণা করা হয়।

বাংলাদেশে বিনিয়োগের অপার সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্যস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম

সফল উদ্যোক্তা ইউরো ফুড গ্রুপের চেয়ারম্যান সেলিম হুসেন এমবিই তার বক্তব্যে ব্রেক্্িরট নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেন। ব্রিটিশ সরকারের ট্যাক্্র নীতির কঠোর সমালোচনাও করেন তিনি। ব্রিটেন নয় বাংলাদেশ ব্যবসায়ীদের জন্য সম্ভাবনাময় এমনটি বলেন ব্রিটিশ বাংলাদেশী সফল এ ব্যবসায়ী

চেম্বারের পক্ষ থেকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ার মুক্তার আহমেদ, ডেপুটি সেক্রেটারী ইমতিয়াজ হুসেন, ট্রেড এন্ড ইনভেস্টমেন্ট ডাইরেক্টর আব্দুল আলিম, শাহ শাফী, মনোহর আলী, ইয়াহিয়া হাসান, আজিজ আহমেদ চোধুরী সহ স্থানীয় ও বিভিন্ন শহরের নেতৃবৃন্দ

Leave a Reply

Developed by: TechLoge

x