• মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০১৯

ট্রাম্পের সম্মানে আয়োজিত রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে যাবেন না করবিন

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ বৃটেনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরের সময় তার সম্মানে যে রাষ্ট্রীয় নৈশভোজের আয়োজন করা হবে, তাতে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছেন দেশটির বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন। দীর্ঘদিন বিলম্বের পর জুনে বৃটেন সফর করবেন ট্রাম্প। এই সফরে তার সম্মানে বৃটেনের রানী একটি নৈশভোজের আয়োজন করবেন। তবে করবিন বলছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বৃটেন সফরের যে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে, তার সঙ্গে তিনি একমত নন। তিনি ট্রাম্পের সম্মানে আয়োজিত কোন ভোজে অংশ নেবেন না বলেও নিশ্চিত করেন। এ খবর দিয়েছে গার্ডিয়ান।

এক বিবৃতিতে করবিন বলেছেন, ‘এমন এক প্রেসিডেন্ট যিনি গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক চুক্তি ছুড়ে ফেলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন অস্বীকার করেন এবং বর্ণবাদী ও নারিবিদ্বেষী বাগাড়ম্বর করে বেড়ান নিয়মিত, তার সম্মানে লাল কার্পেট বিছানো উচিত হবে না তেরেসা মের।’
তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার জন্য ঝাকজমকপূর্ণ রাষ্ট্রীয় সফর আয়োজনের দরকার নেই। এটি হতাশাজনক যে, বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী মার্কিন প্রশাসনের প্রতি ফের নতজানু আচরণ করছেন। তবে করবিন বলেছেন, যেকোনো স্বার্থসংশ্লিষ্ট ইস্যুতে তিনি ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকে বসতে প্রস্তুত।

তবে তার এই আমন্ত্রণে যে মার্কিন পক্ষ সাড়া দেবে না, তা প্রায় নিশ্চিত।

করবিনের আগে বৃটিশ পার্লামেন্টের স্পিকার জন বারকো, লিবারেল ডেমোক্রেট দলের নেতা স্যার ভিন্সে ক্যাবলও একই অবস্থান নিয়েছেন। প্রসঙ্গত, বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে করবিন আনুষ্ঠানিক রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে যোগ দিয়ে থাকেন। এর আগে ২০১৫ সালে বিরোধী দলীয় নেতা হওয়ার পর তিনি চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং-এর সম্মানে আয়োজিত নৈশভোজে অংশ নিয়েছিলেন। এছাড়া নেদারল্যান্ডসের রাজা উইলেম আলেক্সান্দারের সফরে তিনি তার প্রতিনিধি হিসেবে ছায়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী এমিলি থর্নবেরিকে পাঠিয়েছিলেন।

হোয়াইট হাউজ নিশ্চিত করেছে যে, বৃটিশ রানী ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তবে এ ধরণের ক্ষেত্রে সাধারণত সফররত রাষ্ট্রপ্রধান বৃটিশ পার্লামেন্টের উভয়কক্ষে ভাষণ দিয়ে থাকেন। কিন্তু পার্লামেন্টের স্পিকার বারকো ২০১৭ সালেই বলে রেখেছেন যে, ট্রাম্পকে পার্লামেন্টে ভাষণ দেওয়ার সুযোগ দেওয়া উচিত হবে না। এক্ষেত্রে মুসলিম কিছু দেশ থেকে অভিবাসীদের ওপর ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞাকে উদ্ধৃত করেছিলেন স্পিকার।

Leave a Reply

More News from আন্তর্জাতিক

More News

Developed by: TechLoge

x