• শনিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২০

টাওয়ার হ্যামলেটসের সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ীর ৪৯ বছরের জেল

Posted on by

লন্ডন ডেস্ক :: বাঙালী অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটসের হোয়াইটচ্যাপল এলাকার সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ী চক্রের ১৬ সদস্যকে ৪৯ বছরের জেলদন্ড দিয়েছে লন্ডনের স্নেয়ার্সব্রোক ক্রাউন কোর্ট। গত শুক্রবার আদালতে এই সাজার মেয়াদ ঘোষণা করা হয়।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, সোয়াটন রোডের বাসিন্দা ২২ বছর বয়সী হাবিবুর রহমান, ট্রাফলগার গার্ডেনের বাসিন্দা ২৩ বছর বয়সী রাজা মিয়া, শেডওয়েল গার্ডেনের বাসিন্দা ২৪ বছর বয়সী জামিল হোসাইন, চ্যাপম্যান স্ট্রীটের বাসিন্দা ২৩ বছর বয়সী ওলিউর রহমান, টার্লিং স্ট্রীটের বাসিন্দা ১৯ বছর বয়সী রাকিব উদ্দিন, হোভার টাওয়ারের বাসিন্দা ১৮ বছর বয়সী সুলাইমান রাবি, গোলসওয়ার্থি এভিনিউর বাসিন্দা ২৪ বছর বয়সী আবু তাহের সিদ্দিকী, কমোডর্স স্ট্রীটের বাসিন্দা ৩১ বছর বয়সী রোহেল আহমেদ, ব্যাকলেস স্ট্রীটের বাসিন্দা ২১ বছর বয়সী ইমতিয়াজ ইসলাম, ব্যাকন স্ট্রীটের বাসিন্দা ২৫ বছর বয়সী মোহাম্মদ আহমেদ, ইলফোর্ডের হ্যাজলডেইন রোডের বাসিন্দা ২৬ বছর বয়সী রাশিক উদ্দিন, ওরডেল রোডের বাসিন্দা ২২ বছর বয়সী এনামুর রহমান, সেন্ট পলসওয়ের বাসিন্দা ২২ বছর বয়সী মোহাম্মদ মুহিবুর রহমান, স্থায়ী ঠিকানাবিহনী ২১ বছর বয়সী আহমাদুর রহমান, মিয়া ট্যারেসের বাসিন্দা ৩৬ বছর বয়সী আব্দুল আজিজ এবং হ্যালি স্ট্রীটের বাসিন্দা ২৪ বছর বয়সী আকবর হোসাইন।

এর মধ্যে দ্রুত গতিতে গাড়ি চালানোর অভিযোগে সুলায়মানের রাবিকে ৪২ মাসের জন্যে গাড়ি ড্রাইভিংয়ে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আদালত। আদালত জানিয়েছে, রাবি এ থার্টিন, এ ফোর ও সিক্স, এম টুয়ান্টিফাইভ এবং এম ইলিভেনে ঘন্টার ১শ ৩০ মাইল গতিতে গাড়ি চালিয়েছেন। গত নভেম্বরে তাকে সিএস গ্যাস ব্যবহার করে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

অপর আসামী বার্নার টেরেসের বাসিন্দা ৩০ বছর বয়সী রোহেল আহমেদের বিরুদ্ধে মামলা বাতিল করা হয়।

এদিকে শুক্রবারের রায় ঘোষণার আগে ১৫, ১৬ এবং ১৭ বছর বয়সী তিন কিশোরকে অবৈধভাবে হেরোইন এবং কোকেইন সরবরাহের অভিযোগে সাজা প্রদান করে আদালত। এছাড়া হেরোইন এবং ক্র্যাক কোকেইন সরবরাহের অভিযোগে ৪২ বছর বয়সী আবুল হাসনাতকে সাত বছর ৬ মাসের জেলদন্ড দিয়েছে আদালত। তার স্থায়ী কোনো ঠিকানা নেই।

একই চক্রের আরো ১৪ জনকে আগামী ২৩ অগাস্ট সাজার মেয়াদ ঘোষণা করবে একই আদালত। তবে ক্যাবল স্ট্রীটের বাসিন্দা ১৮ বছর বয়সী আতাউর রহমান, সিডনী স্ট্রীটের বাসিন্দা ১৮ বছর বয়সী মোহাম্মেদ চৌধুরী, স্থায়ী ঠিকানাবিহীন ২৫ বছর বয়সী মোহাম্মদ আলী হাসানের সাজার মেয়াদ ঘোষণার তারিখ এখনো নির্ধারন হয়নি।

সংঘবদ্ধ এই চক্র পাঁচটি মোবাইল লাইনের সঙ্গে বিটি ফোন বক্সের সংযোগ ঘটিয়ে ড্রাগ সরবরাহ করতো। যার মাধ্যমে প্রথম কয়েক মিনিট ফ্রি আলাপ করে তারা ড্রাগ সাপ্লাইয়ের প্রস্তুতি নিত বলে আদালতের শুনানিতে বলা হয়েছে। এই চক্রটি প্রায় ১ দশমিক ২৮ মিলিয়ন পাউন্ডের ব্যবসা করেছে বলে ধারণা করছে আদালত।

রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস জানিয়েছেন, কাউন্সিলের উদ্যোগে পুলিশের বিশাল এই অভিযানের মূল বার্তা হল, ড্রাগ ডিলারদের সঙ্গে কোনো ধরনের আপোষ নেই। কাউন্সিল সব সময়ই ড্রাগ ডিলারদের আইনের হাতে তুলে দিবে। সফল এই অভিযানের জন্যে তিনি পুলিশকেও ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য গত জুন এবং জুলাইয়ে টাওয়ার হ্যামলেটসের প্রায় ৫০টি ঠিকানায় অভিযান চালিয়ে প্রায় ৪৯ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল এবং হাউসিং এসোসিয়েশনগুলোর যৌথ অভিযানে প্রায় ৩শ পুলিশ অফিসার অংশ নিয়েছিল। অভিযানে ষাট হাজার পাউন্ড নগদ অর্থ উদ্ধার করা হয়। একই সঙ্গে অর্ধ কিলো ক্লাশ এ ড্রাগ এবং চারটি শটগান উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত সবাইকে অভিযুক্ত করলেও এর মধ্যে মাদক কেনাবেচাসহ ৭০টি অভিযোগে ৩২জন নিজের দোষ স্বীকার করেন আদালতে। এর মধ্যে ৩২ জন পুরুষ এবং ৩ জন ইয়ূথ আদালতে নিজের দোষ স্বীকার করেন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ১১ জন নিজেদের নির্দোষ দাবী করেন। শিঘ্রই তাদের বিচার শুরু হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।{ সংবাদটি ব্রিটবাংলা থেকে নেয়া }

Leave a Reply

More News from কমিউনিটি

More News

Developed by: TechLoge

x