• সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

বুড়িচংয়ের মিজানুর রহমানের দখলে কুমিল্লার ইয়াবা ব‌্যবসা

Posted on by

মাহফুজুর আহমেদ ,কুমিল্লা: মিজানুর রহমান। মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে ব্যবসাক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি । কুমিল্লা থেকে ঢাকায় বিস্তৃত তাঁর ব্যবসা। কুমিল্লা বুড়িচংয়ের বাসিন্দা হলেও বাস ঢাকয়। আবাসিক হোটেল, রেস্টুরেন্ট ,পরিবহন ব্যবসা রয়েছে তাঁর। ঢাকা -চট্রগ্রাম ও সিলেট হাইওয়েতে ১৬ টি হোটেলের মালিক । ঢাকার ৩৫০০ স্কয়ার ফিটের ফ্লাট । উত্তরায় দুইটি , লালমাটিয়ায় ১টি এবং চট্রগ্রামের কাজীর দেউড়িতে একাধিক অভিজাত অ্যাপার্টমেন্ট। কুমিল্লা শহরে কোন বাড়ী অথবা ফ্লাট নেই । খুব চালাক প্রকৃতির মাদব ব্যবসায়ী । সৌদি আরবে দুইটি হোটেল পার্টনার হিসেবে রয়েছেন মিজানুর রহমান।
বর্তমানে বিএনপি থেকে নির্বাচন করে বুড়িচং উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন ।

মাত্র এক যুগের ব্যবধানে শিল্পপতি মিজানুর রহমান এখন কয়েক শত কোটি টাকার মালিক। অল্প সময়ের মধ্যে তাঁর এই ফুলে-ফেঁপে ওঠা আলাদিনের চেরাগের নাম ইয়াবা। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএসসি) ও গোয়েন্দা সংস্থার তালিকায় দেশের সবচেয়ে বড় ইয়াবার ডিলার মিজানুর রহমান। কিন্তু বর্তমান সরকারের কয়েকজন মন্ত্রীর সাথে রয়েছে তার ভাল সম্পর্ক । একজন মন্ত্রীর ক্রিকেট ক্লাবে ৩ কোটি টাকা ডোনেশন করেছেন । ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে প্রতি নিয়ত ডোনেশন করে যাচ্ছে । যার ফলে কুমিল্লা জেলায় মাদক সহ হোটেল ব্যবসায় কাউকে চাঁদা দিতে হচ্ছে না । সম্প্রতি ঢাকা -চট্রগ্রাম হাইওয়েতে পাঁচ তারকা মানের হােটেল জমজম চালু করেছে ।

কি ছিল তার প্রথম ব্যবসা? কোথায় থেকে এসেছে এই অর্থ বুড়িচংয়ের কারো জানা নেই । তবে স্থানীয়রা জানান তার আবাসিক হােটেল গুলোতে মাদক সহ নারীদের দিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ চলে দিন আর রাতভর । হোটেল জমজমটি শহর থেকে অনেক দুরে । তাহলে কেন এত দুরে হোটেল করলেন তিনি । যেখান নাই কোন দর্শনীয় স্থান, নেই কাছাকাছি কোন শহর অথবা গ্রাম । মুলত নারীদের দিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ আর মাদক রাজ্য বানিয়েছেন মিজানুর রহমান । চট্রগ্রাম রেঞ্জের অনেক প্রশাসন এই হােটেলে এসে বিরতি নেন । তখন মিজানুর রহমান তাদেরকে ফুলের অর্ভ্যথনা জানান ।

হোটেল জমজম মাদক সহ নারীদের দিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপের স্থান

অনুসন্ধানে জানা গেছে, চট্টগ্রামে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক হাজি সাইফুল করিমের সাথে কুমিল্লা জেলার সাব এজেন্ট হিসেবে কাজ করছেন মিজানুর রহমান । কুমিল্লা জেলা সহ সৌদি আবরবে ইয়াবা পাচারে মিজানুর রহমানের রয়েছে বিশাল নেটওয়ার্ক । স্কুল জীবন শেষ করে জড়িয়ে পরে নানা মাদবদ্রব্য বানিজ্যে । এভাবে তৈরি হতে থাকে তার মাদক সামরাজ্য । বুড়িচং থানায় আওয়ামলীগের শক্তিশালী নেতা থাকার কারনে বিএনপিতে জড়িয়েছে মিজানুর রহমান । কারন বিএনপির পক্ষে রয়েছে সাংবাদিক শওকত মাহমুদ । অর্থনৈতিক ভাবে সাংবাদিক শওকত মাহমুদ তেমন শক্তিশালী না থাকার কারনে আগামীতে বিএনপির প্রার্থীতা হিসেবে টিকেট কিনতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন মিজানুর রহমান ।
। তাঁকে আন্তর্জাতিক ইয়াবা কারবারিও বলা হচ্ছে। বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থাকলেও টাকার দাপটে বরাবরই থেকে যাচ্ছেন আড়ালে। চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে প্রভাবশালী মিজানুর রহমান কিছুটা বিব্রতকর অবস্থায় পড়লেও সৌদিতে বহাল তবিয়তেই আছেন। বর্তমানে তিনি সৌদির আরবে আছেন ।
অভিযোগ উঠেছে, কুমিল্লার এক ওসির সহযোগিতায় দীর্ঘদিন ধরে নির্বিঘ্নে ইয়াবার সাম্রাজ্য কবজা করে রেখেছেন মিজানুর রহমান ।
শুধু তাই নয় , কুমিল্লার সিনিয়র কিছু সাংবাদিক ছাড়া অন্যন্যা বহু সাংবাদিকদেরকে বিশেষ দিনগুলোত উপহার পাঠিয়ে খুশি রাখছেন মিজানুর রহমান । বর্তমান সরকার আমলে বিএনপির নেতা হিসেবে কোন মামলা না থাকলেও বেশ ভালো ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে ব্যবসা বানিজ্য ।

এছাড়া বুড়িচং উপজেলায় চলানলের হুমায়ন মেম্বার , কংশনগরের বাবুল , লতিফ , খালেক , শংকুচাইলের নেহারুল, সেলিম , শাহআলম রবি , বিল্লাল, শশিদলের হুমায়ন, হেলাল, রিমন প্রমূখ এই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত ।

Leave a Reply

More News from অন্যান্য

More News

Developed by: TechLoge

x