• সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

জার্মান গবেষণায় বিএনপির দাবির প্রতিফলন : ফখরুল

Posted on by

ইউএনএন বিডি নিউজঃ বাংলাদেশে গণতন্ত্রের ‘নূন্যতম মানদণ্ড মানা হচ্ছে না’ বলে বিবিসিতে প্রকাশিত জার্মান গবেষণার সঙ্গে বিএনপির অভিযোগের মিল পাচ্ছেন দলটির নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।তিনি বলেছেন, গবেষণা প্রতিবেদনে যে ধরনের তথ্যের কথা এসেছে, তা নিয়ে বিএনপি আগে থেকে বলে আসছিল। এখন সেটারই প্রতিফলন ঘটছে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথসভা শেষে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই প্রসঙ্গে কথা বলেন বিএনপির মহাসচিব।বাংলাদেশ এখন স্বৈরশাসনের অধীন এবং সেখানে এখন গণতন্ত্রের ন্যূনতম মানদণ্ড পর্যন্ত মানা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছে একটি জার্মান গবেষণা প্রতিষ্ঠান। এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা।বিশ্বের ১২৯টি দেশে গণতন্ত্র, বাজার অর্থনীতি এবং সুশাসনের অবস্থা নিয়ে এক সমীক্ষার পর জার্মান প্রতিষ্ঠান ‘বেরটেলসম্যান স্টিফটুং’ তাদের রিপোর্টে এই মন্তব্য করে। রিপোর্টটি শুক্রবার প্রকাশ করা হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনের প্রসঙ্গ তুলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিশ্বের বিভিন্ন দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ নিচের দিক থেকে অন্যতম পাঁচটি দেশের একটি, যেখানে গণতন্ত্র বিদায় নিয়েছে এবং স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।এটাতে আমরা বাংলাদেশের নাগরিক, যারা মুক্তিযুদ্ধে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করেছি, স্বাধীনতা অর্জন করেছি, তারা অত্যন্ত লজ্জাবোধ করছি। নিন্দা জানাচ্ছি যে, সরকার আজকে স্বৈরতান্ত্রিক হয়ে বাংলাদেশকে এই অবস্থায় নিয়ে এসেছে। এটাই আমরা এত দিন বলে আসছি, যেটি আজকে বিশ্বে স্বীকৃত হয়েছে এবং সেটির প্রতিফলন দেখছি।২৪ মার্চে জাতীয় পার্টিকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করতে দেওয়ার সমালোচনা করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, যারা (জাতীয় পার্টি) একটি নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে সেদিন (২৪ মার্চ) জোর করে ক্ষমতা দখল করে স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিল, তারা আজকে সমাবেশ করছে। অথচ যারা গণতন্ত্রের জন্য স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে সেদিন আন্দোলন করেছে বারবার অনুমতি চাওয়া হলেও তাদের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।এ সময় মির্জা ফখরুল জানান, আগামী ২৯ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের জন্য দু’একদিনের মধ্যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাবর একটি চিঠি নিয়ে যাবে বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল। বিএনপিরর স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসরামের নেতৃত্বে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উদ্দিন আহমেদ এবং আলতাফ হোসেন চৌধুরী থাকবেন।

এর আগে দুই দফায় সমাবেশের অনুমতি চেয়ে না পেলেও বিএনপির মহাসচিব প্রত্যাশা করেন এবার তারা সমাবেশের অনুমতি পাবেন।

মির্জা ফখরুল জানান, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এবং ভবিষ্যতে দলের করণীয় কী, সে বিষয়ে মাঠ পর্যায়ের নেতাদের কাছে পরামর্শ নিতে বিএনপির ৩৭টি টিম ৭৮টি সাংগঠনিক জেলা সফর করবেন। আগামী ২৩ মার্চ থেকে এই সফর চলবে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত।

এর আগে বিএনপির এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের নিয়ে যৌথসভা করেন মির্জা ফখরুল।সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, ড. আব্দুল মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, বরকত উল্লাহ বুলু, আবদল্লাহ আল নোমান, অবসরপ্রাপ্ত মেজর হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, গিয়াস কাদের চৌধুরী, এ জেড় এম জাহিদ,  সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

More News from বাংলাদেশ

More News

Developed by: TechLoge

x