• রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

পুলিশের ওপর হামলা অনুপ্রবেশকারীদের: মির্জা ফখরুল

Posted on by

ইউএনএন বিডি নিউজঃ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, রাজধানীর হাইকোর্ট এলাকায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া আদালত থেকে ফেরার পথে সংঘর্ষের ঘটনা অনুপ্রবেশকারীরা ঘটিয়েছে। পুলিশের প্রিজনভ্যানে হামলা উদ্দেশ্যমূলক। হামলাকারীরা বিএনপির কেউ নয়।

আজ বুধবার সকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এ দাবি করেন। ‘বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর রায়সহ বিপুলসংখ্যক বিএনপি নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার, পুলিশি হয়রানির প্রতিবাদে’ এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গতকাল বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালতে হাজিরা দিয়ে ফিরছিলেন। দলের চেয়ারপারসনের আদালতে হাজিরার দিন প্রতিবারের মতো কালও নেতা-কর্মীরা হাইকোর্ট মাজারের গেটে জড়ো হন।

পুলিশের দাবি, খালেদা জিয়া ফেরার সময় মিছিল থেকে পুলিশের দিকে ইটপাটকেল ছোড়া হয়। হাইকোর্ট এলাকায় পুলিশের প্রিজন ভ্যান ভেঙে দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নিয়ে যান বিএনপির নেতা-কর্মীরা। এ সময় তাঁদের সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশের একজন অতিরিক্ত উপকমিশনারসহ (এডিসি) অন্তত চার পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশের দুটি রাইফেলও এ সময় ভাঙচুর করা হয়।

মির্জা ফখরুল গতকালের ওই হামলা নিয়ে বলেন, ‘গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের সামনে যে হামলা হয়েছে, আমরা নিজেরাই তাদের ‘এক্সাক্টলি’ চিনতে পারছি না। সত্যিকার অর্থে আমরা আশঙ্কা করছি, অনুপ্রবেশকারীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে আমাদের বিশ্বাস।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছি, শান্তিপূর্ণভাবে রাজনীতি করার চেষ্টা করছি। সরকার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এটাকে নস্যাৎ করার চেষ্টা করছে।’গতকাল রাত সোয়া ১০টায় গুলশান থেকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) আটক করে বলে বিএনপি অভিযোগ করে।

গয়েশ্বর রায়কে গ্রেপ্তারের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এটা হঠাৎ করে একটা অশনিসংকেত। আরও উদ্বেগজনক বিষয় হলো, দীর্ঘ রাত ধরে গয়েশ্বর রায়কে গ্রেপ্তারের বিষয়টি স্বীকারই করা হয়নি। মির্জা ফখরুল বলেন, যখন দেশের মানুষ একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করছে, তখনই সরকারপক্ষ থেকে এসব কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এর মূল উদ্দেশ্য হলো বিরোধ দলকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখা। বিএনপিকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখা।

বাসায় বাসায় পুলিশ হানা দিচ্ছে জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, গতরাতে বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক স্পীকার ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকারের বাসভবনে পুলিশ হানা দিয়ে ব্যারিস্টার সরকারের খোঁজ খবর করে। এছাড়াও বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মান্নানের ধানমন্ডির বাসভবন, বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরীর শান্তিনগরের বাসভবন, বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি’র সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেলের বাসভবন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুর বাসভবন, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসানের পল্লবী’র বাসভবন, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও আইনজীবী রফিক সিকদারের বাসা, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেরা আলাউদ্দিনের শান্তিনগরের বাসভবন, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী আজিজুল হাকিম আরজু’র বাসাসহ শত শত বিএনপি নেতাকর্মীদের বাসায় বাসায় পুলিশী তল্লাশীর নামে ব্যাপক তাণ্ডব চালানো হয়েছে। এই মূহুর্তে পুলিশ জিঞ্জিরা ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি মামুনের বাসায় হানা দিয়ে ব্যাপক তল্লাশী চালাচ্ছে। কারণ মামুনের বাসায় গয়েশ্বর চন্দ্র রায় মাঝে মাঝে ঘরোয়া বৈঠক করতেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আতাউর রহমান ঢালী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, বিএনপি নির্বাহী কমিটির সদস্য এবং গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের মেয়ে অর্পণা রায়, ছেলের স্ত্রী নিপুন রায় চৌধুরী প্রমুখ।

Leave a Reply

More News from বাংলাদেশ

More News

Developed by: TechLoge

x