• রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ উপলক্ষে ৫ জানুয়ারি সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করবে বিএনপি

Posted on by

ইউএনএন বিডি নিউজঃ আগামী ৫ জানুয়ারি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ উপলক্ষে বিএনপি সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করবে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ‘৫ জানুয়ারি বিএনপির উদ্যোগে ঢাকা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ এবং দেশব্যাপী মহানগর, জেলা, উপজেলা পর্যায়ে কালো পতাকা মিছিল করা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

সোমবার (১ জানুয়ারি) দুপুরে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

‘নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে বিএনপির পরাজয় নিশ্চিত’ ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী বলেন, “যদি তাই হয় তাহলে ওবায়দুল কাদের সাহেবরা নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে ভয় পান কেন? ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে দেশকে গণতন্ত্রহীনতার গভীর খাদের দিকে ঠেলে দিলেন কেন? বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে তাদের গণবিরোধী কার্যক্রমে গোটা দেশ আজ  অন্ধকারে নিমজ্জিত। নানা কেলেঙ্কারির হোতা বর্তমান সরকার এবং ‘বাইরে ফিটফাট, ভিতরে সদরঘাট-নির্বাচন কমিশন’ এর অধীনে কখনই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে না। বছরের প্রথম দিনে জনগণের প্রত্যাশা- নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় নির্বাচন করতে হবে।”

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের গণতন্ত্র লাল দেওয়ালের ভেতরে বন্দী। গণতন্ত্রে অপরিহার্য শর্ত হলো বিরোধী দল। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি সরকারি নির্যাতনের শিকার। গণতন্ত্রে স্বীকৃত সভা-সমাবেশকে তারা বানচাল করেছে। কণ্ঠরোধ করার জন্য গণমাধ্যম থেকে শুরু করে নানা চিন্তা, মত ও বিশ্বাসের মানুষের ওপর নেমে এসেছে সরকারের নানা আক্রমণের আঘাত।’

রিজভী বলেন, ‘বিএনপির শীর্ষ পর্যায় থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত নেতাকর্মীরা বিভিন্ন মিথ্যা ও রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক মামলায় জর্জরিত। জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রতীক দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে ভুয়া ও জালিয়াতি করে সাজানো মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করার জন্য প্রতি সপ্তাহে কয়েকদিন আদালতে হাজিরা দিতে হচ্ছে। এছাড়াও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান, বিএনপি মহাসচিব, জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে প্রায় সারাবছরই আদালতে হাজিরা দিতে ব্যস্ত থাকতে হয়েছে।’

Leave a Reply

More News from বাংলাদেশ

More News

Developed by: TechLoge

x