আজ বৃহস্পতিবার,২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী

লন্ডনে খালেদা জিয়ার কারামুক্তি দিবসে বক্তারা: ১/১১ ছিল জিয়াপরিবার ও গনতন্ত্রকে ধ্বংসের এক নীলনকশা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭ ৭:২৭ পূর্বাহ্ণ   আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭ at ৭:৩৪ পূর্বাহ্ণ
 
ইউকে বিডিটাইমস ডেস্কঃ বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ১০ম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষ্যে যুক্তরাজ্য বিএনপির উদ্যোগে আলোচনা সভা গত ১১ সেপ্টেম্বর পূর্ব লন্ডনের বাডেট রোডের একটি হলে অনুষ্ঠিত হয়। যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালিকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান।
 
মাহিদুর রহমান বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের রেখে যাওয়া দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী শক্তির বিশ্বস্ত সংগঠন বিএনপিকে সমৃদ্ধ করে যুগ যুগ ধরে দেশ পরিচালনা ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনে নিরলসভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন। সে কারণে দেশের ১৭ কোটি জনগণ বেগম খালেদা জিয়াকে দেশনেত্রী ও আপোসহীন খেতাবে ভূষিত করেছেন। তিনি বলেন, ১/১১ ছিল জিয়াপরিবার ও গনতন্ত্রকে ধ্বংসের এক নীলনকশা। ওয়ান ইলিভেনের সময় থেকে শহীদ জিয়া ও বিএনপি পরিবারকে ধ্বংসের যে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল তা আজও অব্যাহত আছে। মাহিদুর রহমান দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার দীর্ঘায়ু কামনা করেন এবং তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বলেনবেগম খালেদা জিয়া আজও কারামুক্ত নন। কারণ সমগ্র দেশ আজ কারাগার নামক জালে বন্দি, দেশে নেই গণতন্ত্র, আইনের শাসন, বাকস্বাধীনতা। তিনি বলেন, যে দিন দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হবে সে দিনই তিনি কারামুক্তি লাভ করবেন।  
সভাপতির বক্তব্যে এম এ মালিক বলেনদেশে গণতন্ত্রের সংকটে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ঐতিহাসিক বিরোচিত ভূমিকা জাতি শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। গৃহবধূ থেকে স্বৈরশাসকের কবল থেকে গণতন্ত্র রক্ষা ও ফ্যাসিস্ট আওয়ামী সরকারের হাত থেকে অবরুদ্ধ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও মইনউদ্দিন-ফখরুদ্দিনের রাজনীতি বিজাতীয়করণ এবং বিএনপিকে নেতৃত্বশূন্য করার দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় আপোসহীন নেতৃত্ব দিয়ে খালেদা জিয়া দেশ ও জাতির দুর্যোগে ত্রাণকর্তার ভূমিকা পালন করেছেন।  বিএনপির চরম দুর্যোগ মুহূর্তে দেশের জন্য নিজের সন্তানদের মায়া ত্যাগ করে যেভাবে দলের হাল ধরে রেখেছেন সেটা সারা বিশ্বে প্রশংসিত।
সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ বলেনসারা বিশ্বে আপোসহীন নেত্রী হিসেবে পরিচিত বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া তার আপোসহীন নীতি বিসর্জন দিয়ে শেখ হাসিনার মত গোপন আঁতাত করলে এখনও বিএনপি ক্ষমতায় থাকতো  দেশনেত্রী সেদিন ষড়যন্ত্র কারীদের সাথে আঁতাত করেননি বলেই তাঁকে কারাভোগ করতে হয়েছে । কয়ছর এম আহমেদ বলেন, সেদিন কেউ দয়া করে তাকে মুক্তি দেয়নি। খালেদা জিয়া সেটা আদায় করে নিয়েছিলেন। তিনি মুক্তি পাননিমুক্তি অর্জন করেছিলেন আর ব্যর্থ করে দিয়েছিলেন ষড়যন্ত্রকারীদের সুদুরপ্রসারী নীলনকশা । কিন্তু শেখ হাসিনা আবারও ১/১১ষড়যন্ত্রকারীদের সাথে আঁতাত করে ক্ষমতায় এসে আজ দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে ধ্বংস করে দিয়েছে।   
বক্তারা বলেনওয়ান ইলিভেনের সময় থেকে শহীদ জিয়া ও বিএনপি পরিবারকে ধ্বংসের যে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল তা আজও অব্যাহত আছে। কিন্তু জাতীয়তাবাদী আদর্শে বিশ্বাসী দেশপ্রেমিক জনতা এই ষড়যন্ত্র কোনদিনই বাস্তবায়িত হতে দেবে না। কোন ষড়যন্ত্রই বেগম খালেদা জিয়ার অগ্রযাত্রাকে স্তব্ধ করতে পারবে না। খালেদা জিয়া বাংলাদেশের গণতন্ত্রের রক্ষাকবচ। বাংলাদেশের প্রতিটি ক্রান্তিকালে খালেদা জিয়া আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে জনগণের পাশে থেকেছেন। অতীতের ন্যায় আবারও তিনি আন্দোলনের মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করবেন। আজ আমাদের সবাইকে গণতন্ত্রের স্বার্থে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের মাধ্যমে স্বৈরাচারী দুর্নীতিবাজ হাসিনা সরকারের পতন ঘটিয়ে সহায়ক সরকারের মাধ্যমে একটি অবাধ নিরেপেক্ষ নির্বাচনের দাবী আদায় করতে হবে ।    
সভায় বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল হামিদ চৌধুরী, যুক্তরাজ্য যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক দেওয়ান মোকাদ্দেম চৌধুরী নিয়াজ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, জাসাসের সভাপতি এমাদুর রহমান এমাদ, যুবদলের সাবেক সভাপতি রহিম উদ্দিন, যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোয়ালেহিন করিম চৌধুরী।
 
সভায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, দেশ নায়ক তারেক রহমান দীর্ঘায়ু করে তাদের দ্রুত সুস্ততার জন্য দোয়া পরিচালনা করেন বিএনপিনেতা মাওলানা শামিম ।অনুস্টানে যুক্তরাজ্য বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দসহ, জোনাল কমিটি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1133 বার
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 

ক্যালেন্ডার