আজ বৃহস্পতিবার,২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী

টিউলিপ সিদ্দিকী ইউরোস্টারে বিভ্রতঃ পাসপোর্টে মা-মেয়ের নাম ও চেহারায় অমিল,

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭ ২:২৪ পূর্বাহ্ণ   আপডেট: সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭ at ২:২৪ পূর্বাহ্ণ
 

 

ইউকে বিডিটাইমস ডেস্কঃ পাসপোর্টে মা-মেয়ের নাম ও চেহারায় অমিল থাকার কারণে টিউলিপ সিদ্দিকী এম পি,ইউরোস্টারে বিভ্রত হয়েছেন।পাসপোর্টে শিশুদের নামের সঙ্গে পিতা-মাতার নাম সংযুক্ত থাকা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন ব্রিটিশ এমপি টিউলিপ সিদ্দীক। সামার হলিডে শেষে দেশে ফেরার সময় নিজের শিশু কন্যার পাসপোর্টের নাম নিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন তিনি। ১৮ মাস বয়সী শিশু কন্যার পাসপোর্টে মা-মেয়ের নামে গড়মিল থাকায় ইউকের বোর্ডার কন্ট্রোল অফিসাররা তাকে সন্দেহের চোখে দেখে। পরবর্তীতে তার স্বামী আসার পর ইউকে বোর্ডার অফিসারদের সন্দেহের অবসান ঘটে।

টিউলিপ জানান, স্বামী ক্রিস প্যারসি এবং ১৮ মাসে কন্যা আজালিয়াকে নিয়ে সামার হলিডে শেষে ফ্রান্স থেকে দেশে ফিরছিলেন। পুশ চেয়ারে কন্যাকে নিয়ে তিনি ইউরোস্টারের ফাস্ট-ট্র্যাকে গিয়েছিলেন। স্বামী প্যারসি তখন একটু দূরে ছিলেন। ফ্রান্সের বোর্ডার কন্ট্রোল পেরিয়ে ট্রেইনে উঠার সময় ইউকে বোর্ডার কন্ট্রোল অফিসার তাকে আটকে দেয়। পাসপোর্টে মেয়ের নামের সঙ্গে মায়ের নাম এবং মা-মেয়ের চেহারার অমিল অফিসারদের সন্দেহ বাড়িয়ে দেয়। টিউলিপ জানান, তার চেহারার সঙ্গে মেয়ে আজালিয়ার চেহারার মিল খুব কম। বরং বাপের চেহারার সঙ্গে মিল বেশি। এ কারণে ইউকে বোর্ডার কন্ট্রোল অফিসার একবার মায়ে মুখে দিকে আরেকবার মেয়ের মুখে দিখে দীর্ঘক্ষণ তাকাচ্ছিল।

এক পর্যায়ে নাকি প্রশ্নও করে যে, এই মেয়ে কে?
এই প্রশ্ন শুনে টিউলিপ অবাক হয়ে যান বলেও জানান। নিজের মেয়ে বলার পর তাকে পাল্টা প্রশ্ন শুনতে হয়েছে, কেনো পাসপোর্টে মা-মেয়ের নামের মিল নেই। পরবর্তীতে তাকে ম্যারেজ এবং বার্থ সার্টিফিকেট দেখানোর জন্যেও বলা হয়। এক পর্যায়ে মেয়েকে অফিসারদের কাছে রেখে স্বামীকে খুঁজে নিয়ে আসার জন্যেও পরামর্শ দেন অফিসাররা। যদিও তখন মেয়ে আজালিয়া কাঁদছিল বলে গার্ডিয়ানকে জানান টিউলিপ। দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তার স্বামী আসার পর সমস্যার সমাধান হয়।
এই ঘটনার পর পাসপোর্টে শিশুদের নামের সঙ্গে পিতা-মাতার নাম রাখার পক্ষে কথা বলেন হ্যামস্টেড এন্ড কিলবার্নের লেবার দলীয় এমপি টিউলিপ সিদ্দিক। এ বিষয়ে হোম অফিসের কাছে একটি চিঠিতে ভ্রমণের সময় বিভ্রান্তি দূর করার জন্যে পাসপোর্টে শিশুদের নামের সঙ্গে পিতা-মাতা, উভয়ের নাম সংযুক্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন টিউলিপ। তিনি জানান, একই কারণে গত ৫ বছরে ইউকেতে প্রায় ৬শ হাজার মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে ইউকে বোর্ডার কন্ট্রোল। তাদেরকে ম্যারেজ অথবা বার্থ সাটিফিকেট দেখিয়ে প্রমাণ করতে হয়েছে যে, সঙ্গে থাকা শিশু তাদের। যদিও হোম অফিস বলেছে, শিশু ছিনতাই, শিশুদের যৌনহয়রানীসহ নানান কারণে ভ্রমণের সময় পরিবারের সঙ্গে শিশু থাকলে অফিসাররা বাড়তি নজরদারী করেন।

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1290 বার
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 

ক্যালেন্ডার