আজকে

  • ৩রা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
  • ৭ই মুহাররম, ১৪৪০ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

টাওয়ার হ্যামলেটসে তিনটি নার্সারি বন্ধের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র হয়েছে আন্দোলন

Published: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ    |     Modified: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ
 

ইউকেবিডি টাইমস ডেস্কঃ টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল এলাকার তিনটি ডে-নার্সারি বন্ধ করার পরিকল্পনা বাতিল করতে ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে ‘সেইভ আওয়ার নার্সারিজ’ নামের একটি ক্যাম্পেইন গ্রুপ। ওভারল্যান্ড, জন স্মিথ এবং ম্যারি সেমব্রুক নামের তিনটি ডে নার্সারি বন্ধের পরিকল্পনার বিরুদ্ধে চলমান এই আন্দোলনের অংশ হিসাবে গত ২১ আগস্ট, মঙ্গলবার রাতে মেয়র জন বিগসকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল স্থানীয় অভিভাবক ও ইউনিসনের কর্মকর্তাদের কথা শুনতে। কিন্তু পারিবারিক ব্যস্ততার কারণ দেখিয়ে সেই আমন্ত্রণ রক্ষা করেননি মেয়র জন বিগস। এই ঘটনার পর ওভারল্যান্ড নার্সারির সাথে সংশ্লিষ্ট অভিভাবক ও পিতা-মাতারা মেয়র জন বিগস এবং চিলড্রেন বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার ডেনি হ্যাসেল বরাবরে একটি চিঠি লেখেন। সেই চিঠিতে অভিভাবকরা আবারো মেয়রের প্রতি তাদের কথা শোনার আহবান জানিয়েছেন এবং ছোট বাচ্চাদের জন্য এসব নার্সারি কতোটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝানোর চেষ্টা করেছেন।

মেয়র জন বিগস ইতোমধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটস বারার নার্সারিগুলোকে উৎকৃষ্ট হিসাবে বর্ণনা করে বলেছেন, এসব নার্সারি বারার সকল বিপদগ্রস্ত ও প্রতিবন্ধী শিশুর জন্য যথেষ্ট এবং কোনো শিশুই সেবা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে না। এই তথ্যকে সত্য মনে করে না ‘সেইভ আওয়ার নার্সারিজ’ ক্যাম্পেইন গ্রুপ। তিনটি ডে নার্সারি বন্ধের পরিকল্পনা ঘোষণা করার পর অন্য ডে নার্সারিগুলোতে বাচ্চাদের পাঠানোর খরচ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে ক্যাম্পেইন গ্রুপ বলেছে, এর ফলে অনেক শিশু ‘আর্লি ইন্টারভেনশন‘, এডুকেশন এবং কেয়ার থেকে ইতোমধ্যে বঞ্চিত হচ্ছে। দারিদ্র-পীড়িত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল এলাকায় ১০২টি বিশেষায়িত, স্বল্প-ব্যয় সাপেক্ষ ও গুণগত মানসম্পন্ন ডে নার্সারি আসন বাতিল করে মেয়রকে আত্মতুষ্টিতে না ভোগার আহবান জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

মেয়রকে লেখা চিঠিতে ক্যাম্পেইন গ্রুপের নেতারা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, বারার ১১টি নার্সারি স্কুলের সাথে যোগাযোগ করে তারা জানতে পেরেছেন, এদের মধ্যে মাত্র দুটিতে ২ বছর বয়সের শিশুদের ভর্তি করা হচ্ছে। এগুলো হলো স্টেপনি এলাকার ওল্ড চার্চ নার্সারি স্কুল, যেখানে কিছু আসন খালি আছে। আর অপরটি হচ্ছে বো এলাকার চিলড্রেন্স হাউস, যেখানে আসন খালি নেই, রয়েছে অপেক্ষমান তালিকা। আর অন্য ৯টিতে দুই বছরের বাচ্চাদের নেয়া হয়না। তিন বছরের শিশুদের নেয়া হয়। বঞ্চিত এসব শিশু বন্ধের পরিকল্পনায় থাকা নার্সারিতে শিক্ষা ও সেবার সুযোগ পেতে পারতোÑ এমন দাবি করে ক্যাম্পেইনাররা বলছেন, জন্মের পরপরই শিশুদের শিক্ষা, তাদের বৃদ্ধি এবং সেবা-যতেœর ক্ষেত্রে আর্লি ইয়ার্স ফাউন্ডেশন স্টেইজ (ই.ওয়াই.এফ.এস.) একটি ভালো নজির সৃষ্টি করেছে। সারা বছরব্যাপী সকাল ৮ টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত সেবা দেয় মেয়র জন বিগসের বন্ধের পরিকল্পনায় থাকা নার্সারি ওভারল্যান্ড, জন স্মিথ এবং ম্যারি সেমব্রুক। ছয় মাস বয়স থেকে শিশুরা এসব নার্সারিতে আসতে পারে।

সেইভ আওয়ার নার্সারি ক্যাম্পেইন গ্রুপের সদস্যরা মেয়র জন বিগসকে লেখা চিঠিতে আরো বলেছেন, এই তিনটি নার্সারি বন্ধ করে দেয়া হলে বিপদগ্রস্ত ছোট শিশু ও প্রতিবন্ধী শিশুদেরকে যেতে হবে বেসরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগে পরিচালিত নার্সারিগুলোতে, যেগুলোর সেবার মান দোদুল্যমান ও অনির্ভরযোগ্য। অন্যদিকে, লন্ডনের ক্রমবর্ধমান রেন্ট ও নতুন চালু হওয়া ৩০ ঘন্টা চাইল্ড কেয়ারের কারণে এসব বেসরকারী ও ব্যক্তি উদ্যোগে পরিচালিত নার্সারিগুলোও দারুন চাপে আছে।

ওভারল্যান্ড নার্সারিতে যে হিয়ারিং ইউনিট চালু আছে সেটি বো এলাকার চিলড্রেন্স হাউজ নার্সারিতে চালু করার কথা বলেছিলেন মেয়র জন বিগস। কিন্তু এটি কখন করা হবে সেটি এখনও স্পষ্ট নয়Ñ এমন অভিযোগ করে ক্যাম্পেইনাররা মেয়রের প্রতি প্রশ্ন রেখেছেন, হিয়ারিং ইউনিটে সেবা গ্রহণের জন্য যেসব শিশু এই মুহুর্তে অপেক্ষা করছে, তাদের কী হবে? ক্যাম্পেইনাররা বলছেন, স্কুলগুলোর বাাজেট আরো কমানো হচ্ছে। এমন বাস্তবতায় নার্সারিগুলোতে যে নতুন সেবা চালুর প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে , তা আসলে পূরণ করা হবে না বলে সংশয় প্রকাশ করেছেন সেইভ আওয়ার নার্সারিজের ক্যাম্পেইনাররা।

ওভারল্যান্ডের সেবা বো এলাকার নার্সারি চিলড্রেন্স হাউসে স্থানান্তরের বাস্তবতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন ওভারল্যান্ডের অভিভাবক ও পিতা-মাতারা। তারা বলছেন, এই মুহর্তে চিলড্রেন্স হাউসের হেড টিচারই কেবল ’সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ’ জানেন; অথচ ওভারল্যান্ডের সকল স্টাফই সাইন ল্যাঙ্গুয়েজে পারদর্শী। ওভারল্যান্ড, ম্যারি সেমব্রুক এবং জন স্মিথ নার্সারির স্টাফরা নাসাল টিউব দিয়ে খাওয়ানো, সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ জানা সহ বিভিন্ন মেডিকেল প্রক্রিয়া সম্পর্কে অবগত বলে উল্লেখ করেছে সেইভ আওয়ার নার্সারিজ ক্যাম্পেইন গ্রুপ। আর্লি ইন্টারভেনশন এবং ডায়াগনসিসের ওপর গুরুত্ব আরোপ করে ক্যাম্পেইনাররা মেয়রকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, এস.ই.এন শিশুরা যদি অতি অল্প বয়সে সেবা না পায় তবে পরবর্তী জীবনে তাদের শিক্ষা ক্ষেত্রে এর একটি কুফল দেখা যায়। একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, উল্লিখিত নার্সারির উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সেবা গ্রহীতারা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন তাদের প্রিয় ও প্রয়োজনীয় প্রতিষ্ঠানগুলো আবারো পুরোদমে চলবে। আর বিষয়টির এমন দোলাচলে তারা বিরক্ত ও হতাশ।
নার্সারি বন্ধের প্রতিবাদে শরীক হতে হলে নিম্নলিখিত ফেসবুক পেজে যুক্ত এবং অন্যদেরও যুক্ত করার আহবান করা হয়েছে। ফেসবুক পেজ যঃঃঢ়ং://িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/ংধাবড়ঁৎহঁৎংবৎরবংষনঃয/
প্রয়োজনে ইমেইল বা টেলিফোন করেও অধিক তথ্য জানতে পারেন। নওরোজা রহমান- ০৭৯৮৯৪১২১১৮
ইমেইল: ঝধাবঞঐঘঁৎংবৎরবং@মসধরষ.পড়স

 
 
 

এই বিভাগের আরও সংবাদ

 

ক্যালেন্ডার