আজকে

  • ২রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ১৭ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং
  • ৭ই সফর, ১৪৪০ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

সফলভাবে সমাপ্ত হলো রেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল

Published: শুক্রবার, জুলাই ২৭, ২০১৮ ৪:৫১ অপরাহ্ণ    |     Modified: সোমবার, জুলাই ৩০, ২০১৮ ১২:২১ পূর্বাহ্ণ
 

ইউকেবিডি টাইমস ডেস্কঃরেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ‘আন টেকেন পাথ‘(ইরানের ছবি), শ্রেষ্ঠ পরিচালক তৌকীর আহমেদ (হালদা), জুরি বোর্ড বিশেষ পুরস্কারে ভূষিত ফখরুল আরেফিন (ভূবন মাঝি), ইমার্জিং অভিনেতার পুরস্কার পান অপর্ণা ঘোষ ও মাজনুন মিজান

এওয়ার্ড প্রদান ও মুক্তিযুদ্ধের ছবি ভূবন মাঝি প্রদর্শনের মাধ্যমে সফলভাবে সমাপ্ত হলো রেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল। প্রতি বছরের মত এবারো অনুষ্ঠিত ১৯তম রেইনবো চলচ্চিত্র উৎসবে ১৫ই জুলাই থেকে ২২ শে জুলাই পর্য্যন্ত বাংলাদেশ, ভারত, তুরস্ক, আলজেরিয়া, ইরান, আইসল্যান্ড, রাশিয়া, বৃটেন সহ মোট ১৮টি দেশের চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। ব্রিটেনে বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের বুঝার জন্য প্রতিটি সিনেমায় ছিল ইংরেজী সাবটাইটেল।
চলচ্চিত্র প্রশিক্ষণ, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, চলচ্চিত্র বিষয়ক পত্রিকা প্রকাশের পাশাপাশি ২০০০ সাল থেকে রেইনবো ফিল্ম সোসাইটি নিয়মিত আয়োজন করে আসছে বার্ষিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল।
গত ২২ জুলাই রোববার পূর্ব লন্ডনের রিচমিক্স সেন্টারে ফেস্টিভ্যালের সমাপনি ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের ডিপুটি স্পীকার কাউন্সিলর ভিক্টোরিয়া ওবাজ। রেইনবো ফিল্ম সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা ও ফ্যাস্টিভ্যাল ডাইরেক্টর মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে ও নাদিয়া লোদি ওহাবের পরিচালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন দু‘বাংলার কিংবদন্তি নায়িকা জয়শ্রী কবির, ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর অমিতা শঙ্কর, ভূবন মাঝি সিনেমার পরিচালক ফখরুল আরেফিন খান, ভূবন মাঝির অভিনেত্রী অপর্না ঘোষ ও অভিনেতা মজনুন মিজান।
এবারের উৎসবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কার জিতে নিয়েছে ইরানে নির্মিত তাহমিনেহ মিলানি পরিচালিত ‘আন টেকেন পাথ’। এছাড়া ‘হালদা’ সিনেমার জন্য শ্রেষ্ঠ পরিচালকের পুরস্কার জিতে নিয়েছেন বাংলাদেশের গুণী নির্মাতা তৌকীর আহমেদ। এছাড়া জুরি বোর্ড বিশেষ পুরস্কার পান ভূবন মাঝির পরিচালক ফখরুল আরেফিন খান। ইমাজিং অভিনেতার পুরস্কার পান অপর্ণা ঘোষ ও মাজনুন মিজান।
বিপুল সংখ্যক দর্শকের উপস্থিতিতে সমাপনী দিনে প্রদর্শিত হয় বাংলাদেশের ফখরুল আরেফিন খান পরিচালিত মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র ‘ভূবন মাঝি‘। বাংলাদেশের গুণি অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ ও কোলকাতার সনামধন্য অভিনেতা পরমব্রত চ্যাটার্জি অভিনিত বহুল আলোচিত সিনেমা ‘ভূবন মাঝি‘ চলচ্চিত্রে আরো অভিনয় করেছেন ম. হামিদ. মজনুন মিজান ও সুভাষিশ ভৌমিক।
দর্শক সমাদৃত ভূবন মাঝি চলচ্চিত্রটি একজন মুক্তিযোদ্ধার সত্য ঘটনা অবলম্বনে রচিত। ১৯৭০ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের রাজনীতির উত্থান পতন, বর্তমান প্রেক্ষাপট, সামাজিক পরিবর্তন খুবই চমৎকারভাবে তুলে ধরা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়ের বিভিন্ন ঘটনা, ট্রেনিং ক্যাম্প, পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের অত্যাচার ছবিতে দেখে হলভর্তি দর্শক আবেগতাড়িত হয়ে পরেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান
গত ১৫ জুলাই পূর্ব লন্ডনস্থ জেনেসিস সিনেমা হলে ফিল্ম ফ্যাস্টিভ্যাল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নির্বাহি মেয়র জন বিগস, বেথনাল গ্রীণ এবং বো এলাকার সংসদ সদস্য রুশানারা আলী, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের কাউন্সিলার মতিনুজ্জামান, ক্যানারী ওয়ার্ফ গ্রুপের এসোসিয়েট ডাইরেক্টর জাকির খান, রেইনবো চলচ্চিত্র উৎসবের পরিচালক মোস্তফা কামাল, রেইনবো চলচ্চিত্র উৎসবের সদস্য নাদিয়া লোদী ওয়াহাব, বাংলাদেশ থেকে আগত ‘ভূবন মাঝি‘ চলচ্চিত্রের পরিচালক ফকরুল আরেফিন খান, অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ, অভিনেতা মাজনুন মিজান। আমন্ত্রিত অতিথিরা তাদের বক্তব্যে রেইনবো চলচ্চিত্র উৎসবের ১৯তম আয়োজনে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, নিঃসন্দেহে এটি একটি মহতি উদ্যোগ এবং উৎসব আয়োজকদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে এই উদ্যোগ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।
বিপুল সংখ্যক দর্শকের উপস্থিতিতে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রদর্শিত হয় তৌকির আহমেদের সদ্য নির্মিত এওয়ার্ড প্রাপ্ত সমাজ সচেতন জনপ্রিয় ছবি ‘হালদা‘। জাহিদ হাসান, দিলারা জামান, তিশা ও মোশাররফ করিম অভিনিত এই ছবিতে হালদা নদীকে দূষণমুক্ত রাখার আন্দোলন, মা মাছকে রক্ষা, নারী নির্যাতনকারীর করুণ পরিণতি সব কিছু সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে।
হালদা চলচ্চিত্রটির জন্য ৫ টি আন্তর্জাতিক ও একটি দেশীয় পুরস্কার অর্জন করেছেন তৌকির আহমেদ। ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর সারাদেশে মুক্তি পায় চলচ্চিত্র ‘হালদা’। টানা দেড়মাস প্রায় শতাধিক প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হয় দর্শক প্রশংসিত চলচ্চিত্রটি।

স্বল্পদৈঘ্যে চলচ্চিত্র
১৬ই জুলাই ব্রাডি আর্ট সেন্টারে আয়োজন করা হয় স্বল্পদৈঘ্যের চলচ্চিত্র প্রদর্শনী এবং আলোচনা অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানে স্থানীয় নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত দর্শকরা এই অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদকে অভিনন্দন জানান। প্রতি বছর এই অনুষ্ঠান আয়োজনেরও আহ্বান জানান উপস্থিত দর্শকরা।

ওমেন্স ফিল্ম কনফারেন্স অনুষ্ঠিত
রেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এর উদ্যোগে গত ১৯শে জুলাই বৃহস্পতিবার ব্রাডি আর্টস সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘ওমেন্স ফিল্ম কনফারেন্স‘। সকল ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা দূর করে নিজেকে গড়ে তোলার দৃঢ় প্রত্যয়, চলচ্চিত্র জগতে নারীদের নানাবিধ প্রতিবন্ধকতা চিহ্নত করে তা থেকে উত্তরণ ও টিকে থাকার পন্থাসমুহ ছিল এই কনফারেন্সের প্রতিবাদ্য বিষয়। আলোচনায় ছিলেন দু‘বাংলার কিংবদন্তি নায়িকা জয়শ্রী কবির, ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর অমিতা শঙ্কর, ইয়েশিম গুজেলপিনার এবং বাংলাদেশের এই প্রজন্মের অভিনেত্রী অপর্না ঘোষ। অতিথি বক্তা ছিলেন কাউন্সিলার আমিনা আলী ও কাউন্সিলার সাবিনা আক্তার।
কাউন্সিলর সৈয়দা সায়েমা আহমেদ ও নাদিয়া লোদি ওহাবের সঞ্চলনায় ফিল্ম মেকার ইসিম গুজালপিনার ও অমিতা শঙ্কর সিনেমার সাথে তাঁদের নিজেদের সংশ্লিষ্টতা, স্ক্রীপট লেখা, থিয়েটারে কাজ করা, নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করার জন্য তাঁদের আয়োজিত বিভিন্ন ওয়ার্কশপসহ বিভিন্ন এওয়ার্ড অনুষ্ঠান আয়োজনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন।
বাংলাদেশের সিনেমার অতীত ও বর্তমান অবস্থা ও তাঁদের পথচলা তুলে ধরেন বাংলাদেশের দু‘ প্রজন্মের অভিনেত্রী জয়শ্রী কবীর ও অপর্ণা ঘোষ। এই দুই গুণী শিল্পীর যাত্রা শুরু সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ এবং সুন্দরী খেতাব অর্জনের মাধ্যমে। জয়শ্রী কবীর উল্লেখ করেন তাঁর সুভাগ্য হয়েছে সব সময় ভাল পরিচালক ও ভাল স্ক্রীপ্টে কাজ করার। তাঁর অভিনিত অনেক কয়টা ছবি জাতীয় পুরষ্কার পেয়েছে। ‘সীমানা পেরিয়ে‘ ও ‘সূর্য্য কন্যা‘ ছবির মত ভালো স্ক্রীপট পেলে তিনি আবারো অভিনয় করবেন বলে জানালেন। কনফারেন্সে আগত মহিলাদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে জয়শ্রী কবির বলেন, নিজেকে নিজে গড়ে তোলার চেষ্টা করো, তাহলে কেউ তোমাকে ঠেকাতে পারবেনা, সফল হবেই। কলকাতার মেয়ে জয়শ্রী রায় অভিনয় করতে ঢাকায় এসে গুণী পরিচালক আলমগীর কবিরকে বিয়ে করে ঢাকায় থিতু হন। ১৯৮৯ সালের ২০ জানুয়ারি আলমগীর কবিরের মৃত্যুর পর পুত্রকে নিয়ে লন্ডনে চলে আসেন। ১৯৬৮ সালে তিনি ‘মিস ক্যালকাটা’ উপাধি ও ১৯৭৫ সালে ‘সূর্য কন্যা’ ছবিতে অভিনয় করে বাচসাস পুরস্কার লাভ করেন।
ওমেন্স ফিল্ম কনফারেন্সে নতুন প্রজন্মের অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ বলেন, তাঁর আইডেল হলেন বাবা। অভিনেতা বাবার রিহার্সেল দেখে সেই ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ে আগ্রহ জাগে। পরবর্তীতে লাক্স চ্যানেল আই সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। তাঁর অভিনিত বিভিন্ন ছবির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ‘শতুপার ঠিকানা‘ ও ভূবন মাঝি‘ উল্লেখযোগ্য। ২০১৬ সালে তাঁর অভিনিত শতুপার ঠিকানায় অভিনয় করার সময়ে তিনি উপলব্দি করেন আসলেই মেয়েদের নিজস্ব কোন স্থায়ী ঠিকানা নেই। বাবার বাড়ী, স্বামীর বাড়ী, বৃদ্ধ বয়সে ছেলের বাড়ী হলো মেয়েদের ঠিকানা যা ‘শতুপার ঠিকানা‘ ছবিতে তুলে ধরা হয়েছে।


মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে নির্মিত ‘ভূবণ মাঝি‘তে অভিনয় করতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছেন অপর্ণা। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি কিন্তু ভূবন মাঝিতে অভিনয় করতে পেরে সেই সময়কার যুদ্ধের বিভিষিকা ও যুদ্ধকালীন সময়ের অনেক কিছু জানতে পেরেছি। এই ছবি দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে সিনেমা হলের স্বল্পতাকে সিনেমা বিকাশের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা বলে তুলে ধরেন অপর্ণা ঘোষ। দিনব্যাপী প্রাণবন্ত এই অধিবেশনে প্রায় ২৫ জন বিভিন্ন পেশার নারী অংশগ্রহণ করেন।
ওমেন্স ফিল্ম কনফারেন্স শেষে সন্ধ্যায় প্রদর্শিত হয় ইরানের সিনেমা ‘উন্টাকেন পথস্‘ও ভারতীয় সিনেমা ‘বেঁচে থাকার গান।
উল্লেখ্য, ভালো ছবি, ভালো দর্শক এবং ভালো সমাজ, এই স্লোগান নিয়ে ১৯৯১ সালে লন্ডনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল রেইনবো ফিল্ম সোসাইটি। বিগত ২৭ বছরে পূর্ব লন্ডনে এই সংগঠনটি বিবিধ কার্য্যকলাপের মধ্য দিয়ে বিশেষভাবে বাংলাদেশী চলচ্চিত্রকে সবার সামনে তুলে ধরছে। শুরুতে বংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেও বর্তমানে ‘‘রেইনবো আর্ন্তজাতিক চলচ্চিত্র উৎসব‘‘ হিসেবে নিয়মিত আয়োজিত হয়ে আসছে এই উৎসবটি।

 
 
 

এই বিভাগের আরও সংবাদ

 

ক্যালেন্ডার