আজকে

  • ২রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ১৭ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং
  • ৬ই সফর, ১৪৪০ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

যুক্তরাজ্যের অবৈধ অভিবাসীদের জন্য ঘর থেকে শুরু হোক মানবতা 

Published: সোমবার, জুন ১১, ২০১৮ ২:৪৪ অপরাহ্ণ    |     Modified: সোমবার, জুন ১১, ২০১৮ ২:৪৪ অপরাহ্ণ
 

রাজু আহমদ:

রোহিঙ্গা একটি নিপীড়িত জনগোষ্ঠীর নাম যারা বর্তমানে বিশ্বের বৃহৎ শরণার্থী জনগোষ্ঠী পাশাপাশি সিরিয়া , ইরাক, লিবিয়াও রয়েছে বৃহৎ শরণার্থীর এই লিস্টয়ে। আমাদের যুক্তরাজ্যের বাঙালি প্রবাসীরা বরাবরই এইসমস্ত শরণার্থীর উপর সহানুভূতিশীল যা হওয়াটাই স্বাভাবিক কারন এটা মানবিক বিষয় যার কারনে তারা সবসময় বিভিন্ন চ্যারিটির মাধমে এই সমস্ত শরণার্থীদের সাহায্য করে আসছে যা খুবই প্রশংসার বিষয় কিন্তু আরেকটা বিষয় তারা প্রায় ভুলেই গেছেন তা হলো সাহায্য পাওয়ার প্রথম দাবিদার হলো কাছের অসহায় মানুষ কিন্তু তারা সেই বিষয়ে উদাসীন, কারা এই সাহায্যের প্রথম দাবিদার ? সঠিক উত্তরটা হলো  যুক্তরাজ্যের অবৈধ অভিবাসীরা যারা দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাজ্যে কাগজপত্র বিহীন ভাবে  অসহায় জীবন যাপন করছে এবং নানা অসুবিধার কারনে দেশেও ফেরত যেতে পারছে না, যখনই তাদের সাহায্য করার কথা উঠে তখনই অবৈধ অজুহাতে সবাই তা এড়িয়ে যায় কারন যত দোষ নন্দ ঘোষ কিন্তু তারা এটা দেখে না যে কমিউনিটিতে আরো কত অবৈধ জিনিস আছে যেমন মাদক ও বেনিফিট প্রতারণা এগুলি তাদের কাছে কোনো ব্যাপার না তারা লেগে আছে অসহায় অবৈধ অভিবাসীদের পিছনে , যুক্তরাজ্যে প্রায় পাঁচ লক্ষ বাঙ্গালী ও তিন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রুশনারা আলী,রুপা হক এবং টিউলিপ সিদ্দিক থাকার পরও বেশিরভাগ কেউই এই অসহায় মানুষের কথা বলেনা অথচ সম্প্রতি উইন্ডরুশ ট্রেজেটির ব্যাপারে আফ্রিকান বংশোদ্ভূত  ছায়া হোম সেক্রেটারি দিয়ানে আব্বত এমপি ডেভিড লামময় এমপি সহ অন্যান্য আফ্রিকান  বংশোদ্ভূত এমপি  ও তাদের কমিউনিটি সরব ছিল যার ফলে এটি সফলতার মুখ দেখেছে এখানে উল্লেখ্য যে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন ১০ বছরের বেশি যারা যুক্তরাজ্যে অবৈধভাবে বসবাস করছে তাদের বৈধতা দেয়ার জন্য দীর্ঘ দিন ধরে জোরালো সমর্থন করছে এবং ছায়া ইম্মিগ্রেশন মন্ত্রী আফজাল খান সাহেব এই বিষয়ে সহানুভূতিশীল কিন্তু আমাদের বাঙ্গালীদের ক্ষেত্রে তা এখন পর্যন্ত অনুপস্থিত আমাদের বাঙ্গালী এমপি ও কমিউনিটি যদি এই ইস্যুতে একটু সদিচ্ছা ও সজাগ হয় তাহলে এই ব্যাপারে সফলতা অর্জন করা কঠিন হবে না তারা কেন ভুলে যাচ্ছে এই অসহায় মানুষগুলোও মানুষ এরা পরিস্থিতির শিকার তারাও কারো সন্তান কারও ভাই বোন কারও স্বামী  বাবা এবং তাদের উপর তাদের অনেকের পরিবার নির্ভরশীল এরা বৈধতা পেলে এরা যেমন উপকৃত হবে তেমনি যুক্তরাজ্যেরও উপকার হবে কারন যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন সেক্টরে বর্তমানে তীব্র দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে পাশাপাশি সরকারি ট্যাক্স ও বাড়বে ।

সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে দশ বছরের বেশি সময় ধরে যেই সমস্ত অভিবাসী অবৈধভাবে বসবাস করছে তাদের বৈধতা দেয়ার জন্য একটি পিটিশন সাইন চলছে  যা ইতিমধ্যে ৩৬০০০ অতিক্রম করেছ ১০০০০০ হলে এটি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে আলোচনা করা হবে তাই আসুন আমরা এই পিটিশনটি https://petition.parliament.uk/petitions/218729 সাইন করে ও অন্যান্যভাবে এই অসহায় মানুষগুলোকে সাহায্য করে ঘর থেকে আমাদের আর্তমানবতার সেবা শুরু করি কারন রোহিঙ্গা ও অন্যান্য শরণার্থীর মতো এরাও বড় অসহায় তাই ঘরের মানুষ হিসেবে এরা মানবিক সাহায্য পাওয়ার প্রথম দাবিদার তাই আশা করছি তিন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রুশনারা আলী,রুপা হক এবং টিউলিপ সিদ্দিক সহ  কমিউনিটির সবাই এই ব্যাপারে অতি দ্রুত এগিয়ে আসবে ।

 
 
 

এই বিভাগের আরও সংবাদ

 

ক্যালেন্ডার