আজকে

  • ৫ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ২০শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং
  • ৯ই সফর, ১৪৪০ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

যৌন উত্তেজক হালুয়া খেয়ে দুই যুবকের মৃত্যু

Published: শুক্রবার, মার্চ ১৬, ২০১৮ ১২:৫৬ পূর্বাহ্ণ    |     Modified: শুক্রবার, মার্চ ১৬, ২০১৮ ৫:৫৮ পূর্বাহ্ণ
 

ইউকেবিডি টাইমসডেস্কঃসাভারের আশুলিয়ায় যৌন উত্তেজক হালুয়া খেয়ে দুই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় অসুস্থ হয়েছে আরো দুইজন। তাদেরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত বুধবার রাতে কবিরাজের যৌন উত্তেজক হালুয়া খেয়ে আশুলিয়ার ভাদাইল এলাকার হাশেম প্লাজার পেছনে অবস্থিত মণ্ডল কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো- আশুলিয়া থানার ভাদাইল এলাকার আব্দুল জয়নালের ছেলে  মো. জিল্লুর রহমান (২৪) ও একই এলাকার সুজাদ আলীর ছেলে মো. মোতালেব মিয়া (২৫)। এ ঘটনায় সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন বাকিরা হলো- আশুলিয়া থানার ভাদাইল এলাকার মো. আবুল শেখের ছেলে মো. শামীম (২৭) ও পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ থানা এলাকার মৃত গনি হাওলাদারের ছেলে মো. ফরিদ উদ্দিন (৪৯)। এদের মধ্যে ফরিদ উদ্দিন আশুলিয়ার নতুন ইপিজেড এলাকার সাইরেক্স ফ্যাশন লিমিটেড কারখানার সিকিউরিটি সুপারভাইজার এবং বাকিরা সবাই বিভিন্ন কারখানার পোশাক শ্রমিক। এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডিউটি ম্যানেজার বাবুল হোসেন জানান, বুধবার রাতে আশুলিয়ার ভাদাইল এলাকা থেকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় জিল্লুর রহমান, মোতালেব মিয়া, শামীম ও ফরিদ উদ্দিন নামের চার জনকে নিয়ে আসেন তাদের স্বজনরা। এসময় হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক জিল্লুর রহমানকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এবং বাকিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য আইসিইউতে প্রেরণ করেন। পরে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতেই মোতালেব মিয়া নামে আরো এক যুবক মারা যান। এছাড়া বর্তমানে শামীম ও ফরিদ উদ্দিনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ফরিদ হোসেনের সহকর্মী জানান, ফরিদ হোসেন রাত ১০টায় কারখানায় প্রবেশ করেন। এরপর রাত ১২টার দিকে আকস্মিকভাবে বমি করার পাশাপাশি ঘামতে থাকেন। পরে তাকে স্থানীয় হাবিব ক্লিনিকে নেয়া হলে তিনি বাসায় হালুয়া খাওয়ার কথা জানান। ঠিক একই সময় আব্দুল মোতালেব, জিল্লুর রহমান এবং শামীমকে হাসপাতালে নিয়ে আসে তাদের স্বজনরা। তাদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেখানকার চিকিৎসকরা চারজনকেই এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। স্থানীয়দের অভিযোগ, মণ্ডল কলোনির ম্যানেজার নুরু মিয়া ও লুৎফর রহমান নাসির নামে একজন ভণ্ড কবিরাজকে বাসায় রেখে ব্যবসা করেন। রাতে ওই কবিরাজ চার জনকে যৌন উত্তেজক হালুয়া তৈরি করে খাওয়ান। এর কিছুক্ষণ পর থেকেই তারা অসুস্থ হতে শুরু করেন। সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গৌতম ঘোষ জানান, বমি, শ্বাসকষ্ট ও অস্থিরতা নিয়ে বুধবার রাতে চার ব্যক্তি হাসপাতালে আসেন। এ ঘটনায় দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি দুইজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। প্রাথমিকভাবে খাদ্য বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহিনুল ইসলাম বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।(মানবজমিন)

 
 
 

এই বিভাগের আরও সংবাদ

 

ক্যালেন্ডার