আজকে

  • ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ২২শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং
  • ১২ই সফর, ১৪৪০ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

স্বরসতীকে সেক্সি বলায় সাংবাদিক আনিসের বিরুদ্ধে মামলা,তদন্ত করছে সাইবার ক্রাইম

Published: বুধবার, জানুয়ারি ৩১, ২০১৮ ৭:৩৯ অপরাহ্ণ    |     Modified: শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৮ ২:৪৩ পূর্বাহ্ণ
 

ইউকেবিডি টাইমসডেস্কঃহিন্দুদের দেবী  সরস্বতীকে সেক্সি বলে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগে সাংবাদিক আনিস আলমগীরের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে। গ্য মঙ্গলবার দেশের একমাত্র সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক সাইফুল ইসলাম মামলাটি এজাহার হিসেবে গণ্য করে তদন্তের জন্য ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দিয়েছেন।

আইনজীবী সুশান্ত কুমার বসু আজ বাদী হয়ে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় দৈনিক মানবকণ্ঠের সাবেক সম্পাদক আনিস আলমগীরের বিরুদ্ধে এ মামলা করেন।

ওই আদালতের সরকারির কৌঁসুলি নজরুল ইসলাম আজ প্রথম আলোকে বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগে সাংবাদিক আনিস আলমগীরের বিরুদ্ধে করা মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে বলেছেন আদালত।

মামলায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে মা সরস্বতী বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী হিসেবে পূজিত হন। অনাদিকাল থেকে হিন্দুদের ঘরে ও উপাসনালয়ে প্রতিবছর শ্রীপঞ্চমীর শুভ তিথিতে শ্রদ্ধা ও ভক্তিতে এ দেবী পূজিত হয়ে আসছেন। সাংবাদিক আনিস আলমগীর এ ব্যাপারে সম্পূর্ণরূপে জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও সাম্প্রদায়িক দোষে দুষ্ট হয়ে শুধু ধর্মীয় বিদ্বেষ, সাম্প্রদায়িক উসকানি, আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেন। ২২ জানুয়ারি সরস্বতীপূজার দিন সরস্বতী দেবীকে নিয়ে তিনি ওই পোস্ট দেন। এতে তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিকে মারাত্মকভাবে আঘাত করেছেন। ওই পোস্টের মাধ্যমে তিনি স্বরূপে আবির্ভূত হয়ে প্রকারান্তরে বকধার্মিক ও ছদ্মবেশী প্রগতিশীল চেহারা জনসমক্ষে প্রকাশ করেছেন।

এ মামলার সাক্ষী আইনজীবী তাপস কুমার পাল প্রথম আলোকে বলেন, আনিস আলমগীরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

অপরদিকে হিন্দুদের দেবী সরস্বতীকে সেক্সি বলে ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার অভিযোগে মুক্তমনা সাংবাদিক আনিস আলমগীরের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। জিডিটি তদন্তের জন্য পুলিশের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম (সোশ্যাল মিডিয়া মনিটরিং) বিভাগে পাঠানো হয়েছে।

প্রাথমিক তদন্তে কটূক্তির অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় একে মামলা হিসেবে গ্রহণ করে পুলিশ।

গত বৃহস্পতিবার রাতে শাহবাগ থানায় জিডি করা হয়। জিডি করেছেন রমনা কালী মন্দিরের একজন ব্যক্তি।

 

 

 

(যে ছবিগুলোকে সেক্সি বলা হয়েছে সেগুলর সাথে সাংব্যদিক আনিস আলমগির)

জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে, গত ২২ জানুয়ারি রাত ৩টা ৩২ মিনিটে আনিস আলমগীর সরস্বতী দেবীকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও অশালীন মন্তব্য করেন। এরপর তিনি ভুল স্বীকার না করে একের পর এক সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক পোস্ট দিতে থাকেন।

জিডিতে তার বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের আবেদন করেন ওই ব্যক্তি।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাফর আলী বিশ্বাস বলেন, জিডিটি এখন মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে।। সাইবার ক্রাইম এটি তদন্ত করছে।তাদের তদন্ত দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাংবাদিক আনিস আলমগীর বর্তমানে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটিতে সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগে শিক্ষকতা করছেন।(প্র/আ,স্ব/বা)

 
 
 

এই বিভাগের আরও সংবাদ

 

ক্যালেন্ডার